১৫+ শিশুদের নিয়ে ইসলামিক উক্তি | ছোট বাচ্চাদের নিয়ে ইসলামিক স্ট্যাটাস

শিশুদের নিয়ে ইসলামিক উক্তি: আপনার সন্তানকে সঠিকভাবে লালন-পালন করা পিতামাতার প্রথম এবং প্রধান কর্তব্য। আপনার সন্তানদের ইসলাম অনুযায়ী বড় করা খুবই জরুরী। “হে ঈমানদারগণ, তোমরা নিজেদেরকে এবং তোমাদের পরিবারবর্গকে সেই আগুন থেকে রক্ষা কর যার জ্বালানী হবে মানুষ ও পাথর…” (কুরআন, ৬৬:৬)। মহান আল্লাহ তায়ালা মাতা-পিতাকে তাদের সন্তানদের সঠিক পথ দেখানোর দায়িত্ব দিয়েছেন, যেমনটি আল্লাহ পবিত্র কুরআন ও মহানবী (সা.)-এর সুন্নাতে বর্ণনা করেছেন।

আমরা আমাদের সন্তানদের যে সেরা উপহার দিতে পারি তা হল তাদেরকে শুধু ভালো মুসলিম নয় বরং ভালো এবং দয়ালু মানুষ হিসেবে গড়ে তোলা। আজকের অত্যন্ত প্রতিযোগিতামূলক এবং অবিশ্বাস্যভাবে ব্যস্ত বিশ্বে, আমাদের চারপাশে অনেক বিভ্রান্তির সাথে, আপনার বাচ্চাদের গাইড করা এবং আপনি যেভাবে চান সেভাবে তাদের বড় করা প্রায়শই কঠিন হয়ে পড়ে। আমরা আশা করি যে নিম্নলিখিত টিপসগুলি আপনাকে এই যাত্রায় সাহায্য করবে এবং যদি আপনার নিজের কোনো চেষ্টা করা এবং পরীক্ষিত টিপস থাকে তবে আমরা সেগুলিও শুনতে চাই।

শিশুদের নিয়ে ইসলামিক উক্তি

মনে রাখবেন যে আমাদের সন্তানরা আমাদের দায়িত্ব এবং আল্লাহর পক্ষ থেকে একটি আমানাহ যা আমাদের অগ্রাধিকার হিসাবে ফোকাস করতে হবে। প্রত্যেক পিতা-মাতা অবশ্যই তাদের সন্তানের জন্য সর্বোত্তম চান কিন্তু দুর্ভাগ্যবশত, আমাদের ফোকাস প্রায়শই আমাদের সন্তানদের ঈশ্বর-ভয়শীল মুসলমান বানানোর মূল লক্ষ্য থেকে সরে যায়।

15 – তারবিয়া, তা’দীব এবং তা’লীম – আপনার সন্তানদের শিক্ষিত করুন
তারবিয়া বলতে শিশুর ধর্মীয় বৃদ্ধিকে বোঝায়। মহানবী হজরত মুহাম্মদ (সা.)-এর উদাহরণ অনুসরণ করে আল্লাহর নৈকট্য অর্জনের শিক্ষা দিতে হবে। কুরআনের শিক্ষা; কর্তব্য, বাধ্যবাধকতা, এবং অধিকার বলা আবশ্যক.

তা’দিব আত্মসংযমের অভ্যন্তরীণ পরিবাহকের সাথে উত্তম বাহ্যিক পদ্ধতি এবং আচরণ শেখায়।

তা’লীম হলো ইসলামে কি করা উচিত এবং কি করা উচিত নয় তার ধর্মীয় নির্দেশ।

এগুলি হল সবচেয়ে মৌলিক এবং প্রয়োজনীয় রীতি যা আমাদের শেখায় কিভাবে একটি শিশুকে বড় করতে হয়। তারবিয়া, তা’দিব এবং তা’লিম, এই তিনটিই সমান তাৎপর্য বহন করে কারণ তারা শিশুকে ভালো মানুষ হওয়ার জন্য আকৃতি দেয়, বড় করে এবং নিয়ন্ত্রণ করে।

এটা জরুরী যে আপনি আপনার সন্তানদের পার্থিব ও ধর্মীয় উভয় জ্ঞানই প্রদান করবেন।

14 – আপনার বাচ্চাদের নম্রতা শেখান
নম্রতা হল সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ গুণগুলির মধ্যে একটি যা মুসলিম পিতামাতাদের তাদের সন্তানের মধ্যে গড়ে তুলতে হবে। আজকের সমাজে, বাবা-মা প্রায়শই অন্যান্য সংস্কৃতি থেকে অনুপ্রাণিত হন এবং চান যে তাদের সন্তান সাহসী, অতিরিক্ত আত্মবিশ্বাসী হোক এবং তারা নম্র হওয়ার গুরুত্ব সম্পূর্ণভাবে ভুলে যান। এটি দীর্ঘমেয়াদে শুধু সন্তানের জন্য নয়, পিতামাতার জন্যও সমস্যার দিকে পরিচালিত করে। আপনার সন্তানকে নম্রতা শেখানোর মাধ্যমে, আপনি তাদের ক্ষমতায়ন করেন এবং প্রকৃতপক্ষে তাদের সাহসী হওয়ার চেয়ে আরও বেশি আত্মবিশ্বাস দেন। আপনার বাচ্চাদের নম্রতা শেখানোর জন্য এখানে কিছু টিপস রয়েছে:

বৃদ্ধাশ্রম, এতিমখানা ইত্যাদি পরিদর্শন করুন, যাতে শিশু বুঝতে পারে যে সে কতটা আশীর্বাদপূর্ণ এবং বিশেষ সুবিধাপ্রাপ্ত এবং তাকে অন্যদের সাহায্য করতে হবে
সময়মতো বাড়ির কাজ শেষ করা, টেবিল পরিষ্কার করা, ভাইবোনদের সাহায্য করা ইত্যাদি ছোট ছোট কাজের জন্য আপনার সন্তানের প্রশংসা করুন।
আল্লাহর প্রশংসা করুন এবং আপনার সন্তানের সাথে আল্লাহকে স্মরণ করুন। একসাথে জিকির করার মাধ্যমে এবং সবকিছুর জন্য আল্লাহর শুকরিয়া আদায় করার মাধ্যমে, আপনি আপনার সন্তানকে একই কাজ করতে অনুপ্রাণিত করবেন
“ধন্যবাদ” এবং “দান করার সংস্কৃতি গড়ে তুলুন।

13 – তাদেরকে সত্যবাদী হতে শেখান
একজন ভালো মুসলমানের সবচেয়ে সুন্দর বৈশিষ্ট্য হলো সে সবসময় সত্য কথা বলে। এমন একটি গুণ যা দুর্ভাগ্যবশত আজকাল অনেক মুসলমানের মধ্যে দেখা যায় না। আরও অনুপ্রেরণার জন্য, কুরআন থেকে এই 10টি সবচেয়ে সুন্দর জীবনের পাঠ দেখুন।

12 – শয়তান সম্পর্কে বাচ্চাদের সতর্ক করুন
আমরা প্রায়শই বাচ্চাদের আল্লাহ, নবী, বেহেশত, জাহান্নাম এবং অন্যান্য বিষয় সম্পর্কে শেখাতে এত ব্যস্ত হয়ে পড়ি যে আমরা ‘শয়তান’ বিষয়টি কভার করতে পুরোপুরি ভুলে যাই। যদিও এটি প্রায়শই অবমূল্যায়ন করা হয়, সত্য হল যে আপনি যখন বাচ্চাদের শয়তান সম্পর্কে শেখান, তখন আপনি তাদের শেখাবেন যে শয়তান কীভাবে কাজ করে এবং কীভাবে তারা তাকে এড়াতে পারে। এটি শিশুকে শক্তিশালী করবে এবং তাকে সারা জীবন মন্দকে প্রতিরোধ করতে শেখাবে।

11 – আপনার সন্তানের প্রতি আস্থা রাখুন
আপনার বাচ্চাদের সাথে ঘনিষ্ঠ মুহূর্তগুলি কাটান যাতে তারা জানে যে তারা আপনাকে বিশ্বাস করতে পারে। আপনি যদি আপনার সন্তানের সাথে আপনার সমস্যাগুলি ভাগ করে নেন উদাহরণ স্বরূপ যে আপনার কর্মক্ষেত্রে একটি কঠিন দিন ছিল, সময় হলে, আপনার সন্তানও আপনার সাথে তার সমস্যাগুলি ভাগ করে নিতে স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করবে। মা এবং বাবা উভয়ের জন্য তাদের সন্তানদের সাথে আলোচনা করা এবং তাদের পরামর্শ দেওয়া গুরুত্বপূর্ণ। বাচ্চাদের প্রতি মনোযোগ দিন এবং কখনও একটি সন্তানকে অন্যের উপর অগ্রাধিকার দেবেন না যেমন নবীও এর বিরুদ্ধে সতর্ক করেছিলেন।

10 – আপনার বাড়িতে নিয়ম আছে
আপনার সন্তানদের বাধ্য, সময়ানুবর্তিতা এবং ভাল আচরণ করার জন্য আপনার বাড়িতে নিয়ম থাকা গুরুত্বপূর্ণ। উদাহরণ স্বরূপ, আপনার বাড়িতে কী ধরনের পোশাক গ্রহণযোগ্য তা আপনার সন্তানদের পরিষ্কারভাবে বোঝা উচিত। বাচ্চা যখন ভুল বা আপনার প্রত্যাশার বিরুদ্ধে কিছু করে তখন তাকে চিৎকার করার পরিবর্তে, আপনার শিশুকে ছোটবেলা থেকেই নিয়মগুলি বোঝানো গুরুত্বপূর্ণ। এটি শিশুদের সঠিক এবং মন্দ থেকে ভাল পার্থক্য করতে সাহায্য করার একটি ভাল উপায়।

9 – নামাজের গুরুত্ব
একটি শিশুকে ছোটবেলা থেকেই নামাজের গুরুত্ব সম্পর্কে বলা উচিত। অভিভাবকদের উচিত তাদের সন্তানদের তাদের সাথে নামাজ পড়া শুরু করা এবং অল্প বয়সে কীভাবে নামাজ পড়তে হয় তা শেখানো উচিত। এটি তাদের প্রার্থনায় নিয়মিততা আনবে এবং তাদের এটি একটি অভ্যাস করতে সাহায্য করবে। ছোটবেলা থেকেই নামাজকে প্রাধান্য দিন এবং নামাজের সময় অন্য সব কাজ ছেড়ে দিন। ইনশাআল্লাহ, শিশুটিও আপনার আদর্শ অনুসরণ করতে শুরু করবে।

8 – ভালো রোল মডেল অনুসরণ করা
ভাল রোল মডেল থাকা খুবই গুরুত্বপূর্ণ কারণ তারা আমরা যা করি এবং আমরা পরবর্তী জীবনে কীভাবে পরিণত হই তা প্রভাবিত করে। ইতিবাচক রোল মডেল আমাদের আরও ভাল মানুষ হতে অনুপ্রাণিত করে। মুসলমান হিসেবে আমাদের সর্বশ্রেষ্ঠ মূর্তি হওয়া উচিত মহানবী (সা.)। আমাদের উচিত আমাদের সন্তানদের সারাজীবন তাঁর আদর্শ অনুসরণ করতে শেখানো। শিশুকে নবী ও আম্বিয়ার সাথে অল্প বয়সে পরিচয় করিয়ে দেওয়া খুবই উপকারী কারণ এটাই শিশুর শেখার বয়স। যখন একটি শিশুকে ভাল মানুষের উদাহরণ দেখানো হয়, তখন এটি তার উপর ব্যাপক প্রভাব ফেলবে এবং শিশুটি তাদের মতো হতে চেষ্টা করবে। এটি শিশুটিকে কেবল একজন ভাল এবং ধার্মিক মুসলিমই করে না, বরং এটি তাকে একটি ইতিবাচক ব্যক্তিত্ব তৈরি করতে এবং তাকে ভাল আচরণ শেখাতে সহায়তা করবে। মহানবী (সা.) এবং তাঁর সাহাবীদের গল্প শেয়ার করার অনেক বই আছে যেগুলো আপনি শিশুর কাছে শোবার সময় বই হিসেবে পড়ে তাকে অনুপ্রাণিত করতে পারেন।

7 – আপনার সন্তানকে তাদের সময় অনুযায়ী বড় করুন
সময় বদলে যায়। আপনি আপনার সময়কাল অনুযায়ী উত্থাপিত হয়েছে. প্রতিটি নতুন প্রজন্ম একটি ভিন্ন সময়ে জন্মগ্রহণ করে। পৃথিবী ভিন্ন হয়ে যায়, এবং পরিবর্তনটি গ্রহণ করা এবং পরিবর্তন অনুসারে আপনার বাচ্চাকে বড় করার চেষ্টা করা বেশ প্রয়োজন। আপনার সন্তানকে আপনি যেভাবে লালন-পালন করেছেন সেভাবে মানুষ করার চেষ্টা করা এবং আপনার মতো করে বাঁচার আশা করা ভুল। এটি বিশ্বাস এবং গ্রহণযোগ্যতার বন্ধন স্থাপন করতে সাহায্য করবে যা একজন পিতামাতা এবং তার সন্তানদের মধ্যে অত্যাবশ্যক।

6- আকীকা করা
আকীকা একটি সুন্নাত আল মুআক্কাদাহ (একটি নিশ্চিত সুন্নাত)। আকীকা ব্যাপকভাবে মুসলমানদের দ্বারা সম্পাদিত হয়। বাচ্চার জন্য ভেড়া জবাই করা এবং তার গোশত গরীবদের দেওয়া সুন্নত বলে মনে করা হয়। মহানবী (সাঃ) বলেছেন: “একটি শিশুকে তার আকিকার জন্য বন্ধক রাখা হয়, সপ্তম দিনে তার জন্য কুরবানী করা হয়, তার মাথা মুণ্ডন করা হয় এবং তার একটি নাম রাখা হয়।” আকীকা ওয়াজিব নয়, এটি একটি সুন্নত। অতএব, পালন না করলে কোনো পাপ নেই, তবে পালন করলে আল্লাহ তায়ালার কাছে অত্যন্ত প্রশংসিত।

5 – প্রেমময় হন এবং তাদের মনোযোগ দিন
জন্ম থেকেই, শিশুদের জড়িত হওয়া এবং সম্পর্কের প্রয়োজন হয় যা তাদের লালনশীল, সক্ষম মানুষ যারা অন্যদের সুখ দেয়। প্রাপ্তবয়স্কদের কাছ থেকে আশাবাদী যত্ন, প্রতিক্রিয়া এবং প্রতিক্রিয়া শিশুদেরকে তারা কতটা প্রশংসিত তার একটি চিত্র তৈরি করতে সহায়তা করে। আপনার এবং তার জীবনের অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিদের কাছ থেকে ইতিবাচক, স্নেহপূর্ণ বার্তাগুলির মাধ্যমে আপনার সন্তানের আত্মসম্মান সময়ের সাথে সাথে আকার ধারণ করে। একটি দৃঢ় স্ব-ইমেজ খুবই প্রয়োজনীয়, শুধুমাত্র অন্যদের সাথে আপনার সন্তানের সংযোগের জন্য নয়, তার আত্মবিশ্বাসের জন্যও যখন সে বিশ্ব সম্পর্কে শিখছে। আপনার সন্তানের নিরাপত্তা এবং সুরক্ষার অনুভূতি আপনার সাথে এবং অন্যান্য ব্যক্তি যারা সন্তানের যত্ন নেয় তাদের সাথে তার যোগাযোগ থেকে আসে। আপনি যদি আপনার সন্তানকে ভয় পান, বা একটি নতুন বা অপরিচিত পরিস্থিতির সম্মুখীন হন তখন আপনি উত্সাহিত করেন এবং সমর্থন করেন, সে নিরীহ এবং আত্মবিশ্বাসী বোধ করবে। তাই আপনার বাচ্চাদের সাথে সময় কাটান এবং একসাথে ক্রিয়াকলাপ করুন যেমন পার্কে যাওয়া, একসাথে রান্না করা, একসাথে বাগান করার মতো কাজ করা এবং একসাথে গেম খেলা। দিনের শেষে, আপনার বাচ্চাদের জন্য অর্থ ব্যয় করার চেয়ে আপনার বাচ্চাদের সাথে সময় কাটানো অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ।

4 – তাদের সুন্নাহ অনুসরণ করতে এবং নবীকে ভালবাসতে শেখান
আমাদের দৈনন্দিন জীবনে এমন শত শত ছোট-খাটো কাজ আছে যেগুলো যদি আমরা সুন্নাহ অনুসরণ করে করি তাহলে আমরা অনেক সওয়াব অর্জন করতে পারি। ছোটবেলা থেকেই আপনার সন্তানদের এই সুন্নতগুলো শেখানোর মাধ্যমে, আপনি এগুলোকে অভ্যাসে পরিণত করতে পারেন যা তারা সারাজীবন অনুসরণ করতে থাকবে। ছোটবেলা থেকেই আপনি শিশুদের শেখাতে পারেন এমন কিছু সুন্নাতের উদাহরণ হল:

3 – আপনার সন্তানকে ধার্মিক এবং দয়ালু হতে উত্সাহিত করুন
একটি ধার্মিক ও ধার্মিক শিশু একটি অব্যাহত দানের মতো। পিতামাতার জন্য তাদের সন্তানকে দ্বীন সম্পর্কে শিক্ষা দেওয়া এবং মহানবী (সা.)-এর সুন্নাহ ও হাদিসের পাশাপাশি আল্লাহর নির্দেশ অনুসরণ করতে উৎসাহিত করা গুরুত্বপূর্ণ। শিশুরা শুদ্ধভাবে জন্ম নেয়, তাদের পরিচালনা ও নেতৃত্ব দেওয়ার দায়িত্ব পিতামাতার। “যখন একজন মানুষ মারা যায়, তখন তিনটি জিনিস ছাড়া তার কাজ বন্ধ হয়ে যায়, যথা, চিরস্থায়ী সাদাকাহ (দান), অথবা এমন জ্ঞান যার দ্বারা উপকার অর্জিত হয়, অথবা একটি নেক সন্তান যে তার জন্য প্রার্থনা করে।” -সহীহ মুসলিম। এই হাদিস আমাদেরকে একজন ধার্মিক সন্তানের গুরুত্ব ও সুবিধা সম্পর্কে আলোকিত করে।

2 – তাদেরকে শিরক থেকে বিরত কর
আপনার সন্তানকে বলা যে একমাত্র ঈশ্বর আছেন তা হল প্রথম সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ পাঠটি আপনার তাকে শেখানো উচিত। একজন বাবা-মায়ের উচিত তাদের সন্তানকে তাদের দিকে তাকাতে শেখানো, এবং তাদের সম্মান করা কিন্তু সর্বশক্তিমান আল্লাহর সাথে তাদের সাথে সমান আচরণ না করা।

1 – আল্লাহর ইবাদত করুন এবং তাঁর কাছে সাহায্য প্রার্থনা করুন
পিতামাতার ধারণা রয়েছে যে তাদের সন্তান তাদের জন্য সরবরাহ করার কথা। একটি শিশুর জীবন জুড়ে, তাকে বলা হয় যে সে বড় হওয়ার সাথে সাথে তাকে পিতামাতার জন্য জোগান দিতে হবে। এই মানসিকতা দিয়ে তাদের বড় করা ভুল। একটি শিশুকে ঈশ্বরের উপাসনার মানসিকতা নিয়ে বড় করা উচিত। আল্লাহ তোমাদের রিযিকের প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন যদি তোমরা তাঁর ইবাদত কর এবং তাঁর আদেশ পালন কর।

শিশুদের নিয়ে ইসলামিক উক্তি এর পরিশিষ্ট:

পরিশেষে, একটি অনুস্মারক যে আপনি কখনই দোয়ার শক্তিকে অবমূল্যায়ন করবেন না। যেদিন থেকে আপনি একটি সন্তানকে আশীর্বাদ করেছেন, সেদিন থেকে তাকে একজন ধার্মিক মুসলিম এবং একজন ভালো মানুষ হিসেবে গড়ে তোলার জন্য আল্লাহর কাছে সাহায্যের জন্য প্রার্থনা করতে থাকুন।

  • একটি প্যারেন্টিং পরিকল্পনা জন্য প্রয়োজন
  • শিশুদের গঠন এবং রুটিন প্রয়োজন
  • শিশুদের শুধু শিক্ষা নয়, লালন-পালনের প্রয়োজন
  • সন্তানদের খারাপ ব্যবহার করলে বাবা-মা কেন জাহান্নামে যাবে না
  • কিভাবে অন্য অভিভাবক এটা ঠিক পেতে
  • আপনি যখন রাগান্বিত হন তখন কীভাবে নিঃশর্ত ভালবাসা দেবেন
  • শিশুরা নির্দোষ, দূষিত নয়

Leave a Comment